সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪, ০৩:২৪ অপরাহ্ন
শিরোনামঃ
রায়পুরায় আ.লীগ এর ৭৫তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত প্রতিরোধহীন বেদনা আওয়ামী লীগের ৭৫তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে বঙ্গবন্ধুর প্রতি প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা নিবেদন হামিদচর এলাকা থেকে অবশেষে কাজলের লাশ উদ্ধার সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসকের ভ্যান উপহার পেলেন স্বামী পরিত্যক্তা নারী সাতক্ষীরায় বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ৭৫ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত পঞ্চগড়ে বঙ্গবন্ধু আন্তঃকলেজ গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট উদ্বোধন আগামীকাল জি বাংলায় “কুবের ময়না” নাটকে অভিনয়ে থাকবে সাংবাদিক কন্যা তিতলি রামপালে নানা আয়োজনে আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত  জিএমপি পূবাইল থানা পুলিশের অভিযানে সিআর ওয়ারেন্টভুক্ত আসামী গ্রেফতার- ৪

নেতা ও নেতৃত্ব কি? লিখলেন বাংলাদেশ প্রবাসী সেবা সংস্থার কেন্দ্রীয় সভাপতি, মোহাম্মদ মিরাজ উদ্দিন।

রিপোর্টার নামঃ
  • আপডেট সময় বুধবার, ১৩ জুলাই, ২০২২
  • ১৩৫ বার পঠিত

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ

এই লেখায় সাধারণ মানুষের সুখদুঃখের ও অধিকার আদায়ের প্রশ্নে সোচ্চার। রাজনীতি যদি হয় জনগণের কল্যাণে তবে সত্যি বলতে বা লিখতে ভয় পাবার কিছু নেই।আমার লেখা কারো পক্ষে বা বিপক্ষে যেতেই পারে তবে জনগন, স্বাধীনতা ও বঙ্গবন্ধুর প্রশ্নে আমি একজন আপোষহীন সৈনিক।

?নেতা এবং নেতৃত্ব কি?
একজন ভালো নেতার সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ গুণগুলির মধ্যে রয়েছে সততা, জবাবদিহিতা, সহানুভূতি, নম্রতা, স্থিতিস্থাপকতা, দৃষ্টি, প্রভাব এবং ইতিবাচকতা। নেতার কাজ হলো লোকেদের এমন কিছু করতে প্ররোচিত করা যা তারা করতে চায় না, মানুষকে এমন কিছু করতে অনুপ্রাণিত করা যা তারা কখনও ভাবেনি তারা করতে পারে।আমার নেতা,যার আদর্শের প্রতি আমার পরম শ্রদ্ধা ও ভালোবাসায় অভিষিক্ত যার নখদর্পণে, অস্থিমজ্জা, শিরাউপশিরায় মানুষের প্রতি ভালোবাসা, আত্বত্যাগ , সহমর্মিতা,এক অদম্য ঐশ্বরিক প্রদত্ত বলয়ে গড়া লৌহ মানব, যার হুংকারে ইয়াহিয়া, ভুট্রো, টিক্কা খান পর্যন্ত স্তম্ভিত ছিলো , যার নেতৃত্বগুণ ও সাহসিকতায় মুগ্ধ হয়ে সারা বিশ্বের মোড়লরা যাকে আপাদমস্তক কুর্নিশে মশগুল ছিলো তিনিই হলেন মহান নেতা সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির অবিসংবাদিত নেতা জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। তিনিই বাঙালি, মাতৃভাষা ও মাতৃভূমির জন্য এক অবতার। তার অক্লান্ত পরিশ্রম,সাহস, কলাকৌশল , কুটনৈতিক, কোয়ালিটি,প্রঙ্গা দ্বারা বাঙালি জাতিকে একত্রিত করে নেতৃত্ব দিয়ে দেশ স্বাধীন করেছে ৩০ লক্ষ শহীদের রক্তে ২ লক্ষ মা বোনের ইজ্জতের বিনিময়ে আমরা পেয়েছি একটা স্বাধীন সার্বভৌম রাষ্ট্র ও পতাকা। আমরা পেয়েছি কথা বলার অধিকার। আমরা পেয়েছি শোষণ মুক্ত একটা জাতি, আমরা গর্ব করে বলতে পারি আমরা বাঙালি। বঙ্গবন্ধু পরিবারের আর্তনাদ এখনও আকাশে বাতাসে ভেসে বেড়ায়, ৩০ লক্ষ শহীদের রক্ত নদী নালায় , সাগরের পানিতে এখনও বহমান। ২ লক্ষ মা বোনের করুন ইতিহাস সাক্ষ্য দেয় বইয়ের পাতায় পাতায়। উনারা নিজেকে উৎসর্গ করেছেন দেশের জন্য,দেশের মানুষের জন্য, দেশের অধিকার আদায়ের জন্য, দেশের সম্পদ টিকিয়ে রাখার জন্য ১৯৫২ থেকে শুরু করে আজ পর্যন্ত যারা দেশ ও জাতির জন্য আত্মাহুতি দিয়েছেন আপনাদের পবিত্র আত্মত্যাগ ও দেশপ্রেমের জন্য আমার মতো ক্ষুদ্র মানুষের পক্ষ থেকে আপনাদের প্রতি রইলো শ্রদ্ধাঞ্জলি । আল্লাহ তায়ালা আপনাদেরকে বেহেশতের সর্বোচ্চ আসনে জান্নাতুল ফেরদাউস নসীব করুন আমীন।

? বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলায় এই স্বাধীন দেশে জনগন কেমন আছেন , কিভাবে দিনকাল অতিবাহিত করছেন তার কিছু অংশ তুলে ধরতে চাই।
?বঙ্গবন্ধুর সেই স্বরনীয় উক্তির মাধ্যমেই শুরু করবো। কোন দেশ সদ্য স্বাধীনতা লাভ করার পর সেই দেশের ভৌগোলিক অবস্থান,একটি ভূখণ্ড, একটা পতাকা ও জনবল সহ স্বর্নের খনি, তেলের খনি, গুপ্ত ধন আরো অনেক কিছু পাওয়া যায়। কিন্তু তিনি পেলেন তার উল্টো চোরের খনি। অর্থাৎ বেশীরভাগ চোর ,বাটপার,লোটেরা, ভূমি দস্যু ,চাটুকার ঘোষখুর, তেলবাজ।
হে বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান আপনি দেখে যান আপনার কষ্টার্জিত সোনার বাংলা এখন লুটেপুটে খাচ্ছে সেই চোরের খনির উত্তরসূরীরা। কতিপয় অসাধু কর্মকর্তা,ব্যবসায়ী সিন্ডিকেট, এমন কোন মন্ত্রনালয় নেই যেখানে চোরের খনি নেই। এমনকি আপনার পবিত্রতম মুজিব কোর্ট পরিহিত কতিপয় অনুপ্রবেশকারী স্বদলীয় নেতারা বা সদস্যরা চুরির কাজে লিপ্ত,আমরা নির্বাক। আমার দেশের কৃষক,শ্রমিক অশিক্ষিত, অর্ধশিক্ষিত ছেলেরা বিদেশে কঠোর পরিশ্রম করে প্রবাসে মানবেতর জীবন যাপন, কষ্ট করে কোটি কোটি টাকা আয়করে নিজ দেশে প্রেরন করে বাংলাদেশের অর্থনীতির চাকাকে সচল রেখেছেন ।আর এদিকে আমার দেশের উচ্চ শিক্ষিত কোর্ট টাই পড়া ভদ্রলোক, কালোবাজারি,সিন্ডিকেট ভূমি দস্যুরা হাজার হাজার কোটি টাকা বিদেশে পাচার করছে। হায়রে সমাজ ব্যবস্থা রাষ্ট্রব্যবস্হা ।
?মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা দ্যা মাদার অব হিউম্যানিটি উনি একজন সৎ, নিষ্ঠাবান,পরহেজগার সাধারণ মানুষের খুব প্রিয় রাষ্ট্রনায়ক। উনি হলেন মহান পিতার যোগ্য উত্তরসূরী। উনি একা সৎ থেকে আর কতদিন চালাবে। একটা অপ্রিয় সত্য কথা বলতে চাই সেটা হলো সাধারণ মানুষ আওয়ামী লীগের চাইতেও শেখ হাসিনা কে বেশি ভালোবাসে সাধারণ মানুষের কাছে ব্যাক্তি শেখ হাসিনার গ্রহনযোগ্যতা অনেক বেশি। আর এতটুকু সম্মান ও ভালোবাসা পাওয়ার পিছনে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার সততা, মানবতা , মানবাধিকার, স্বচ্ছতা, ও জবাবদিহিতা , সৎসাহস, পরহেজগার ও বিনয়ী এসব অলংকারে অলংকৃত।

?সর্ব শেষে আমি জননেত্রী শেখ হাসিনার কাছে অনুরোধ জানাবো আপনার মহান পিতার সেই উক্তির কথাটা মাথায় রেখে (চোরের খনিকে) তাদের শক্তিকে ভেঙে চুরমার করে দিন। আপনার সৎ , মনোবল কঠোর পরিশ্রম দ্বারা দেশকে উন্নতির শিখরে নিয়ে যাচ্ছেন , বিশ্বের কাছে বাংলাদেশকে গৌরবময় করেছেন। বিশ্ব নেতারা আপনার দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে ভূয়সী প্রশংসা করে ,আপনার নেতৃত্বকে অনুসরণ করে। সেই উন্নয়নের ধারা কে বিঘ্নিত করার জন্য বিরোধী দলের পাশাপাশি নীজ দলের লোকগুলোকে চিহ্নিত করে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করুন। মন্ত্রী পরিষদ ও ৩৫০ জন সংসদ কেবিনেটের সকলের কার্যক্রম, রাজনৈতিক কোয়ালিটি, জনসাধারণের জানমালের নিরাপত্তা যাদের ধারা বিঘ্নিত হচ্ছে।
তাদেরকে চিহ্নিত করে কঠোর ব্যবস্থা নেবেন। অসাধু কর্মকর্তা,ব্যাবসায়ী সিন্ডিকেট, বিদেশে টাকা পাচার কারী , অর্থাৎ যাদের কারণে জনগণ ও তার নিরাপত্তা বিঘ্নিত, দেশের সম্পদ বিনষ্ট কারী চোর বাটপারদের আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করুন দেখবেন জনগণ আপনার সাথে থাকবে। নিত্যপ্রয়োজনীয় খাদ্য দ্রব্যে সহ সাধারণ মানুষের ব্যবহার কৃত সকল জিনিস পত্রের দাম ক্রয় ক্ষমতার বাহিরে চলে গেছে এটা মূলত সিন্ডিকেট দ্বারা পরিচালিত করে সরকারের উপর দায় চাপিয়ে সরকারের বদনাম ছড়াচ্ছে। ওদের কে চিহ্নিত করুন। যাতায়ত ব্যাবস্হার আরো উন্নতি করতে হবে। এদিকে রেল লাইনের যাতায়াতের উপর নির্ভর করে প্রন্তিক জনতা কিন্তূ টিকিট বিক্রি হচ্ছে কালোবাজারি সিন্ডিকেট দের দ্বারা, এখানেও মানুষ হয়রানির শিকার হচ্ছে। হে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সাধারণ মানুষ প্রতারিত হচ্ছেনা কোথায় বলেন তো? এসব কিছুর মূলে নিজ দলীয় কতিপয় ক্ষমতাসিনরাই সিন্ডিকেট করছে। ক্ষমতার অপচয় করছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী এদেরকে চিহ্নিত করুন। চোরেরা যে দলের হোক না কেন তাদেরকে আইনের আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা করুন। ওদের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স ঘোষণা করে এগিয়ে চলুন। ভয় পাবার কিছু নেই।একটা কথা মনে রাখবেন রাখে আল্লাহ মারে কে? আপনাকে মারার জন্য ১৯ বার চেষ্টা করেও ব্যর্থ হয়েছে সুতরাং বাকি জীবন টা সত্যের জন্য লড়াই করবেন। মানুষ মরনশীল আপনার সুস্বাস্থ্য ও দীর্ঘায়ু কামনা করছি । হে মাননীয় নেত্রী আপনার কাছে আকুল আবেদন অন্তত চোরের খনি টা ধ্বংস করে আপনার বাবার আফসোস টা লাঘব করতে পারেন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশ চালানোর অর্থনৈতিক যোগানদাতা হিসাবে বাংলার রেমিটেন্স যোদ্ধারা সবসময় আপনাকে সাপোর্ট করবে, আপনি দয়া করে প্রবাসীদের ভবিষ্যৎ নিয়ে একটু ভাবুন। প্রবাসীরা নিজের দেশে ফিরে এসে অনেক সময় বেকার জীবন যাপন করতে হয়। ঐ সময়টার জন্য আপনি তাদের পিছনে দাঁড়াতে হবে। প্রয়োজনে প্রবাসীদের জন্য ফান্ডের ব্যাবস্তা করে দিন। কোটি কোটি মানুষের দোয়া ও ভালোবাসা আছে আপনার চলার পথে সহায়ক হিসাবে। আপনিই পারবেন এই দেশটাকে সুরক্ষা নিশ্চিত করতে। নিরাপত্তার বলয় গড়ে তুলতে। আপনার হাতে থাকলে দেশ ,পথ হারাবে না বাংলাদেশ। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মাননীয় সায়মা ওয়াজেদ পুতুল ওবায়দুল কাদের – এম.পি ওবায়দুল কাদের

মোহাম্মদ মিরাজ উদ্দিন
সভাপতি
কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটি
বাংলাদেশ প্রবাসী সেবা সংস্থা
যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক
সিঙ্গাপুর আওয়ামী লীগ।

সাংবাদ পড়ুন ও শেয়ার করুন

আরো জনপ্রিয় সংবাদ

© All rights reserved © 2022 Sumoyersonlap.com

Design & Development BY Hostitbd.Com

কপি করা নিষিদ্ধ ও দণ্ডনীয় অপরাধ।